নিজস্ব প্রতিবেদক-

দুবাই থেকে পায়ুপথে ৩৭ লাখ টাকার স্বর্ণ এনে শুল্ক গোয়েন্দাদের হাতে ধরা পড়লেন ফেনীর ছাগলনাইয়া উপজেলার রফিকুল ইসলাম (৪৭)।

মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) সকাল ৮টার দিকে চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে কাস্টমস গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের হাতে ধরা পড়েন এ দুবাই প্রবাসী। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শুল্ক গোয়েন্দা চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপ-পরিচালক একেএম সুলতান মাহমুদ। 

তিনি বলেন, শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে স্বর্ণ চোরাচালান হতে পারে, এমন সংবাদের ভিত্তিতে সর্তক অবস্থান নেওয়া হয়। সকালে দুবাই থেকে আসা বাংলাদেশ বিমানের যাত্রী রফিকুল গ্রিন চ্যানেল অতিক্রম করার সময় তার দেহ ও ব্যাগ তল্লাশি করা হয়। প্রথমে তল্লাশি করে দুইটি স্বর্ণের বার পাওয়া যায় যেগুলো তিনি ঘোষণা দিয়ে তিনি শুল্ক পরিশোধ করেন। এক পর্যায়ে তার পায়ুপথে আরও দুটি বার রয়েছে বলে স্বীকার করেন। পরে সেগুলো উদ্ধার করা হয়।

এ ছাড়া রফিকুলের লাগেজ তল্লাশি করে ঘোষণা বহির্ভূতভাবে আনা ১৬ কার্টন বিদেশি সিগারেট, ১০০ গ্রাম স্বর্ণের অলংকার এবং চকলেট ও খাদ্যসামগ্রী পাওয়া গেছে। স্বর্ণের বারসহ জব্দ করা মালামালের দাম ৩৮ লাখ ৬৫ হাজার ১৯৬ টাকা। এর মধ্যে স্বর্ণের বারের দাম ৩৭ লাখ টাকা। রফিকুল এ বছরের শুরু থেকে ১৯ জুলাই পর্যন্ত ১০ বার বিদেশে গেছেন। তাকে ৬ জুন বিদেশ থেকে দেশে স্বর্ণবার ও অলংকারসহ আগমনের সময় সতর্ক করা হয়েছিল বলে জানান শুল্ক গোয়েন্দা উপ-পরিচালক একেএম সুলতান মাহমুদ।

শুল্ক গোয়েন্দা কর্মকর্তারা বলছেন, আইন অনুযায়ী, অবৈধ পণ্য আনলে এর সঙ্গে বৈধ পণ্যও অবৈধ হিসেবে গণ্য হয়। রফিকুলের সঙ্গে থাকা সব মালামাল জব্দ করে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।