জবি প্রতিনিধি-

গ্ৰীন এনভায়রনমেন্ট মুভমেন্ট কর্তৃক আয়োজিত বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০২২ উপলক্ষে এক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (৪জুন) সিরডাপ মিলনায়তনে ‘প্রকৃতির ঐকতান টেকসই জীবন: বাংলাদেশ প্রেক্ষিত’ শিরোনামে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় দেলোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন মাহির সঞ্চালনায় অনুষ্ঠান কার্যক্রম শুরু হয়। অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনা করেন গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. একিউএম মাহবুব। তিনি বলেন, ‘আমর যখন ছোট ছিলাম তখন ৭০ শতাংশ জমি চাষাবাদযোগ্য ছিল। কিন্তু এখন তা কমে ৬০ শতাংশে নেমে এসেছে। তার মানে দেশে দিনদিন চাষাবাদযোগ্য জমির পরিমাণ কমে যাচ্ছে। এই যে জলবায়ু পরিবর্তন হচ্ছে এর প্রভাব স্বাস্থ্য-কৃষিসহ সব খাতে পড়ছে। পরিবেশ দূষণের প্রভাবও বাংলাদেশের সব খাতেই পড়ছে। বাংলাদেশকে কেউ দখল করবে না। এখন আর কলোনিয়াল যুগ নেই। তবে পানি দূষিত হওয়া মানে আমরা শেষ! কারণ পানি দূষিত হলে খাদ্য, মৎস্য ও কৃষিতে উৎপাদনসহ আমাদের সবকিছু শেষ হয়ে যাবে।’ বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহবুবা নাসরিন বলেন, ‘আমাদের প্রজাতিকে যখন রক্ষা করতে পারব তখন আমরা পরিবেশ দিবস পালনের সক্ষমতা অনুধাবন করতে পারব।’ অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে গ্রীন এনভায়রনমেন্ট মুভমেন্টের সভাপতি আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘মানুষ যদি ভাবে একমাত্র তারাই পৃথিবীর নিয়ন্ত্রণ করবে তাহলে মানুষও পৃথিবীকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। এইরকম করলে ডাইনোসরের মতো আমরাও বিলুপ্ত হয়ে যেতে পারি। আমরা যেই দূষণের শিকার তা নিয়ে আমরা কথা বলব। শুধু কথা বলব না, সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করব। আমরা পরিবেশ দূষণ করে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ চাই না আমরা টেকসই বাংলাদেশ চাই।’ এ সময় তিনি যারা মেয়র হবেন তাঁদের শহরের পরিবেশ নিয়ে ভাবতে অনুরোধ জানান। পাশাপাশি পরিবেশ সুরক্ষায় পরিবেশ মন্ত্রণালয়কে আরও এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। পরিবেশ ও মানবাধিকার কর্মী ব্যারিস্টার ফারজানা মাহমুদ বলেন, ‘পরিবেশ রক্ষায় এত আইন থাকলেও জীব-বৈচিত্র্যের সুরক্ষা নেই এবং বন ও বন্যপ্রাণীকে উচ্ছেদ বন্ধ নেই। ভূগর্ভস্থ পানির আহরণ আরও বেড়েছে। আসলে উন্নত বিশ্ব পরিবেশের স্বাস্থ্যের কথা ভাবেনি। আমাদের পরিবেশ রক্ষায় ব্যক্তিগত সচেতনতা বাড়ানো, অনেক গাছ লাগানো, পানি ও খাদ্য অপচয় রোধ করা, পরিবেশ আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রাখা জরুরি। গ্রীন এনভায়রনমেন্ট মুভমেন্টের সাধারণ সম্পাদক ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মহিউদ্দিন মাহি বলেন, ভৌগোলিক অবস্থান ও সম্পদের তুলনায় অধিক জনসংখ্যা আমাদের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ, যে কারণে আমাদের প্রতিবছর বিভিন্ন দুর্যোগের সম্মুখীন হই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক তৌহিদুল হক বলেন, ‘এক সময় আমরা সবাই পড়েছি, পানির কোনো রং নেই। কিন্তু কয়েক দিন আগে বুড়িগঙ্গাকে দেখে আমাদের মনে হয়েছে, না, পানির রং আছে। আর সেটা হলো কালো রং। তবে এটা এখন পরিবর্তন হচ্ছে। বুড়িগঙ্গাকে দখলমুক্ত করতে সরকার নানা পদক্ষেপ নিয়েছে, সে জন্য সরকার সাধুবাদ পাওয়ার দাবিদার।’ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মিহির লাল সাহা বলেন, ‘পানিকে পৃথিবীর অন্যতম উপহার বলা হয়। তাই আমাদের সৃষ্টিকর্তা আমাদের পরিষ্কার পানি দিয়েছে এটা দূষণ করার অধিকার আমাদের কারও নেই।’ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক ড. মল্লিক আকরাম হোসেন। অনুষ্ঠানে পরিবেশ রক্ষায় কাজ করে যাওয়া বিভিন্ন জেলা ও মহানগরকে পুরস্কৃত করা হয়।